লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানেন কি?

লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

লেবু পছন্দ করে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। লেবুর উপকারিতা বলে শেষ করা যাবে না। রান্না করে বা রান্না ছাড়া সব ভাবেই লেবু খাওয়া যায়।

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড দাবদাহে যখন শরীর ক্লান্ত হয়ে যায় তখন এক গ্লাস লেবুর সরবত শরীরের সকল ক্লান্তিকে নিমিষেই দূর করে দেয়। খাবারের স্বাদ বাড়াতে লেবুর তুলনা হয় না।

শুধুই কি স্বাদের জন্যে লেবু খাই আমরা? যদি এ প্রশ্ন করি তাহলে বেশির ভাগ মানুষের উওর হবে ‘হ্যাঁ’। আমাদের মধ্যে লেবুর উপকারিতা সম্পর্কে তেমন বিশেষ কোন ধারনা নেই বললেই চলে। তাই আসুন জেনে নেই লেবুর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে।

মাঝারি সাইজের একটি লেবু থেকে চল্লিশ মিলিগ্রাম পর্যন্ত ভিটামিন-সি পাওয়া যায়, যা একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের দৈনিক ভিটামিন-সি এর চাহিদা পূরণ করতে পারে।

ভিটামিন-সি দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। শরীরে কাটা বা ক্ষতস্থান তাড়াতাড়ি শুকাতে সাহায্য করে ভিটামিন-সি।

লেবুতে থাকা সাইট্রিক অ্যাসিড ক্যালসিয়ামের হওয়া হওয়া আটকে শরীরকে পাথুরি রোগ হতে সুরক্ষা প্রদান করে। এছাড়া লেবুর খোসার ভেতরে থাকা ফ্ল্যাভানয়েড শরীরের শিরা গুলিকে শক্তিশালী করে যার ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়।

ওজন কমাতে লেবুর উপকারিতা

লেবু বা লেবুর রস খেলে ওজন কমে। লেবু শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমতে দেয় না। এছাড়া লেবুতে থাকা প্যাকটিন নামক ফাইবার ঘন ঘন ক্ষুধার ভাবকে কমিয়ে দেয়। কিন্তু এতে আপনার শরীরে অন্য কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়না। ক্ষুধা ভাব কমে যাওয়ায় আপনি অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকবেন। যার ফলে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে না। এজন্য খাবারের সাথে কিংবা সরবত করে নিয়মিত লেবু খান।

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়

ইসকোমিক সাধারণ ধরনের একটা স্ট্রোক। যখন রক্ত জমাট বেধে মস্তিস্কে রক্ত চলাচলে বাধা দেয় তখন এই স্ট্রোক হয়। লেবুতে থাকা ফ্ল্যাভানয়েড গুলি ইসকোমিক স্ট্রোকের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

লেবু ক্যান্সার ও হৃদরোগের হাত থেকে রক্ষা করে

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে নিয়মিত ফ্ল্যাভানয়েড যুক্ত খাবার খেলে ক্যান্সার ও কার্ডিওভাসক্যুলার রোগের ঝুঁকি কমে যায়। এজন্য নিয়মিত লেবু অথবা লেবুর সরবত খেতে পারেন।

রক্ত চাপ বা ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতে লেবুর উপকারিতা

লেবুর উপকারিতা গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি হলো নিয়মিত লেবু খেলে ব্লাডপ্রেসার নিয়ন্ত্রণে থাকে। জাপানে করা একটি গবেষণায় দেখা গেছে যেসকল মহিলারা নিয়মিত হাটে ও লেবুর সরবত খায়। তাদের ব্লাডপ্রেসার ঠিক থাকে অন্য মহিলাদের তুলনায়।

হাঁপানি সমস্যায় লেবুর ব্যবহার

যারা হাঁপানির সমস্যায় ভুগেন তাদের জন্য লেবু খুবই উপকারী। লেবুতে রয়েছে ভিটামিন-সি যা স্বাসকষ্ট কমিয়ে আনতে সাহায্য করে। নিয়মিত ভিটামিন-সি যুক্ত খাবার খেলে সর্দি কাশি কমে যায়।

রক্ত স্বল্পতা দূর করতে লেবুর উপকারিতা

রক্ত স্বল্পতার প্রধান কারণ আয়রনের ঘাটতি। ভিটামিন-সি যুক্ত খাবার আয়রনের ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। এজন্য যে সব খাবারে আয়রন আছে তা বেশি বেশি খাবেন। যেমন- গরুর লিভার, পালং শাক, শুকনো মটর, ছোলা ও  মাংস। লেবুতে থাকা ভিটামিন-সি এসব আয়রন যুক্ত  খাবারকে আরও সমৃদ্ধশালী করে তোলে।

শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে লেবু

লেবু আপনার শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। যেসব খাবারে অতিমাত্রায় ভিটামিন-সি ও এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকে সেগুলো শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তোলে। লেবু ভিটামিন-সি তে ভরপুর। সাধারণ সর্দি-কাশি-জ্বরের জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে এসব পুষ্টি উপাদান।

রূপচর্চায় লেবুর উপকারিতা

রূপচর্চা করতেও লেবুর উপকারিতা অনেক। মুখে লেবুর রস মাখলে তৈলাক্ত ভাব দুর হয়। ওলিভওয়েলের সাথে লেবুর রস মিশিয়ে নখে লাগালে নখ শক্ত হয়। লেবুর রস মাখলে মুখে ব্ল্যাক হেডস দুর হয়ে যায়। এছাড়া চুলে লেবুর রস মাখলে খুশকি চলে যায় এবং চুল পরা কমে।

হজম ক্ষমতা বাড়ায়

পেট বা খাদ্য যন্ত্রের পরিচর্যাতেও লেবুর উপকারিতা আছে। নিয়মিত লেবুর শরবত খেলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। লিভারের ইনফেকশন হয় না। এটি বদহজম হওয়া, বুক জ্বালা করা ও গ্যাস্টিকের সমস্যাকে দুর করে। পেটকে কৃমির আক্রমণ হতে রক্ষা করে।

লেবুর খোসা খাওয়ার উপকারিতা

লেবু এমন একটা খাদ্য উপাদান যার খোসা খেলে পাবেন অনেক উপকার। লেবুর খোসার থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য জনিত সমস্যা দূর করে। লেবুর খোসা মুখে ঘষে মুখের কালো দাগ, বলি রেখা সরানো যায়। ডায়াবেটিস রোগীরা লেবুর খোসা খেতে পারেন কারণ এটা রক্তে চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে।

লেবু এমন একটি খাদ্য উপাদান যার উপকারিতা বরে শেষ করা যাবে না। লেবু নিজে একা যেমন পুষ্টি গুনে ভরপুর তেমনি অন্য খাবারের সাথে মিশে তার পুষ্টিগুণকেও বাড়িয়ে দেয়। এজন্য লেবুর উপকারিতা পেতে নিয়মিত লেবু বা লেবুর সরবত খান।

 

তথ্যসূত্র: মেডিক্যাল নিউজ টুডে।

অনলাইনপ্রেস/জেএ/এনজে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *