আমের উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন

আমের উপকারিতা

রিয়া সরকারঃ আম আমাদের সবারই খুব প্রিয় ফল, স্বাদে অনন্য আমের উপকারিতা অনেক। পৃথিবীর অনেক জায়গাতে আম কে ফলের রাজা বলা হয়। খেতে যেমন ভালো তেমনি এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণের পুষ্টিগুণ।

গবেষণায় দেখা গেছে, আম আমাদের ইমিউনিটি সিস্টেমকে ভালো রাখার সাথে সাথে হজম শক্তি বাড়ায় এবং দৃষ্টিশক্তিকে আরও উন্নত করতে সাহায্য করে। এমনকি আম ক্যন্সারের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে।

ক্যান্সার রোধে আমের উপকারিতা

ডাক্তারের মতে, আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ এনটিঅক্সিডেন্ট যেমন- কোরেসেটিন, ফিসেটিন, গ্যালিক এসিড, মিথাইল গ্যালেট যা আমাদের শরীরকে স্তন ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার, প্রস্টেট ক্যান্সার এবং লিউকেমিয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে পারে।

কোলেসটরল কমাতে আমের উপকারিতা

আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ফাইবার ও পেকটিন যার ফলে রক্তে খারাপ কোলেসটরল বা লো ডেনসিটি লিপো-প্রোটিন কমিয়ে আনতে সাহায্য করে।

ত্বক পরিষ্কার রাখতে আমের উপকারিতা

আমে রয়েছে ভিটামিন সি ও ভিটামিন এ যা ত্বককে ভালো রাখতে খুবই উপকারী। আমের পুষ্টিগুণ ত্বকের মৃতকোষ দূর করে ত্বকে নতুন জেল্লা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে আমের উপকারিতা

প্রতিদিনের ডায়েটে আম থাকা খুব উপকারী, কারণ আম আমাদের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। আমে রয়েছে প্রচুর বিটা ক্যারোটিন যা ভিটামিন এ উৎপাদন করতে সাহায্য করে। আমের এনটিঅক্সিডেনট দৃষ্টিশক্তি উন্নত করার সাথে সাথে বার্ধক্য জনিত নানান চোখের সমস্যা সমাধান করে থাকে।

হজম শক্তি ভালো রাখতে আমের উপকারিতা

আম একটি এনজাইম যুক্ত ফল যা আমাদের শরীরের অতিরিক্ত প্রোটিনের পরিমাণ কমায়। আমের আঁশের গুনাগুণ হজমে ও পরিপাকে সহায়তা করে। এছাড়াও আমে যেহেতু প্রচুর পানি এবং ফাইবার রয়েছে তাই এটি কোষ্ঠকাঠিন্য বা ডায়রিয়ার মতো সমস্যার সমাধান করে থাকে।

ইমিউন সিস্টেমকে ভালো রাখতে আমের উপকারিতা

আমে ভিটামিন সি, এ এবং অন্যান্য বিভিন্ন ধরনের ক্যারোটিনয়েড থাকে। ভিটামিন এ শরীরের ইমিউনিটি সিস্টেম কে ভালো রাখতে খুবই উপকারী কারণ ভিটামিন এ আমাদের যেকোনো ধরনের ইনফেকশনের হাত থেকে রক্ষা করে থাকে এবং ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সাথে সাথে আপনার ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা ও দূর করে থাকে। এছাড়াও আমে রয়েছে ভিটামিন কে, ই, এবং ভিটামিন বি যা আপনার ইমিউন সিস্টেমকে ভালো রাখতে দারুণ উপকারী।

এছাড়া যাদের শরীরে আইরন বা ক্যালসিয়ামের ঘাটতি রয়েছে তাদের আম খাওয়া উচিত কারণ আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আইরন ও ক্যালসিয়াম।

আরও পড়ুন: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় কাঁচা হলুদ

ডাইবেটিকস নিয়ন্ত্রণে আমের উপকারিতা

আমরা অনেকেই হয়ত ভেবে থাকি যে আম মিষ্টি তাই ডাইবেটিকস রোগীদের আম খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কিন্তু এই ধারনাটি একদমই ভুল। খেতে মিষ্টি হলেও আম ডাইবেটিকস রোগীরাও খেতে পারবেন। আমের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স গড় ৪১ থেকে ৬০ পর্যন্ত যা গড়ে ৫১ হয়। ৫৫ এর কম হলে তা ডাইবেটিকস রোগীদের জন্য নিরাপদ হিসেবে ধরা হয়। কম গ্লাইসেমিক খাবার গুলো রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা অতিরিক্ত বাড়ায় না। যার ফলে শরীরে কোন প্রকার অসুবিধা তৈরি হয়না এবং ফাইবার সমৃদ্ধ বলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

আমে ক্যালরি কম কিন্তু পুষ্টিতে ভরপুর। জেনে নেওয়া যাক ১কাপ আমের (১৬৫ গ্রাম) পুষ্টিগত উপাদান।

ক্যালরি: ৯৯
প্রোটিন: ১.৪ গ্রাম
কার্বসঃ ২৪.৭ গ্রাম
ফ্যাটঃ ০.৬ গ্রাম
ডাইবেটিক ফাইবারঃ ২.৬ গ্রাম
ভিটামিন সিঃ ৬৭%
কপারঃ ২০%
ফলেটঃ ১৮%
ভিটামিন বি ৬ঃ ১১.৬%
ভিটামিন এঃ ১০%
ভিটামিন ইঃ ৯.৭%
ভিটামিন বি ৫ঃ ৬.৫%
ভিটামিন কেঃ ৬%
নিয়াসিনঃ ৭%
পটাসিয়ামঃ ৬%
রিবফ্লেবিনঃ ৫%
ম্যঙ্গানিসঃ ৪.৫%
থায়ামিনঃ ৪%
ম্যগ্নেসিয়ামঃ ৪%

তথ্যসূত্র: হেলথলাইন, আর্টিক্যালস হাউ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *